রাতে কি ঠিক মতো ঘুম হচ্ছে না? ঘুম বা ক্লান্তি দূর করতে এই কাজগুলো অবশই করুন

Share It!

আমরা জানি “Early to bed and early to rise” নীতি অনুসরণ করা কতটা কঠিন। আমরা অধিকাংশই এই নিয়মের ঠিক বিপরীত কাজ করি, কখনও কখনও আমরা গভীর রাত পর্যন্ত জেগে থাকি। কারণ যাই হোক না কেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় সময় কাটানো, কারও সাথে কথা বলা, রাতে পড়াশুনা করা বা কোনও প্রকল্পে কাজ করা সবই ঘুমের অভাবের প্রধান কারণ হয়ে থাকে। ফলে তাদের পর্যাপ্ত ঘুম হয় না। সকালে ঘুম থেকে উঠে আবার কাজে যায় এবং তারপর সারাদিন অলস বোধ করে।

এখন আপনি যখন সারাদিন ক্লান্ত ও অসুস্থ বোধ করছেন, তখন কীভাবে সারাদিন কাজ করবেন। অলসতার কারণে ঠিকমতো কাজও করতে পারছেন না আবার অফিস বা স্কুল কলেজের কাজ এবং পড়াশোনার জন্য বাড়ি ফিরতেও পারবেন না। তারপর বাড়ি ফিরে আমরা আবার ঘুমাতে যাওয়ার পরিকল্পনা করি। সারাদিন অলস বোধ করা ভাল জিনিস নয় এবং আমরা এটি খুব ভালভাবে বুঝতে পারি, কারণ আমরা সকলেই কোনও না কোনও সময়ে এই পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে চলেছি।

এটা প্রতিদিনই ঘটছে, যার কারণে আমরা ভাবতে বাধ্য হচ্ছি কেন এমন হচ্ছে। কেন আমরা রাতে ঠিকমতো ঘুমাতে পারি না? আমরা কি ঠিকমতো খাচ্ছি না, বেশি চিন্তা করার কারণেই কি এমন হচ্ছে? যাইহোক, আপনি সঠিক কারণ না জেনে এই সমস্যার সমাধান করতে পারবেন না। এই কারণেই এটা জানা গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি কেন রাতে ঘুমাচ্ছেন না এবং তারপর সারা দিন শরীরে ক্লান্তির প্রভাবের সম্মুখীন হচ্ছেন। নিদ্রাহীনতার পিছনে অনেক ছোট এবং গুরুতর সমস্যা থাকতে পারে যা উপেক্ষা করা সমর্থনযোগ্য নয়।

Table of Contents

Read More:  Heat Stroke: হিট স্ট্রোকের প্রধান লক্ষণ কী। জানুন এর থেকে নিজেকে বাঁচানোর ১০টি উপায়

অনিদ্রার প্রধান কারণ

যদি দেখেন আপনার রাতে না ঘুমানোর সমস্যা হয় এবং আপনি কেবল এদিক ওদিক পরিবর্তন করেই আপনার রাত কাটাচ্ছেন, তবে এর পিছনে এই কারণগুলি থাকতে পারে:

মানসিক চাপ (stress)

ঘুম না হওয়ার পিছনে সবচেয়ে সাধারণ কারণ হতে পারে মানসিক চাপ। যখন মানসিক চাপ থাকে, তখন শরীরে কর্টিসলের মাত্রা বৃদ্ধি পায় যা একটি স্ট্রেস হরমোন। এ কারণে শরীর বিশ্রামের অবস্থায় থাকতে পারে না এবং মস্তিষ্ক সক্রিয় থাকে, যার কারণে ঘুমাতে অসুবিধা হয়।

গবেষণায় দেখা গেছে যে মানসিক চাপকে অনিদ্রার সবচেয়ে বড় কারণ হিসাবে বিবেচনা করা হয়। তবে এটাও বলা হয়েছে, যে জিনিসটি আপনার মানসিক চাপ বাড়াচ্ছে তার ভূমিকাও আপনার ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আরো পড়ুন: হিট স্ট্রোকের প্রধান লক্ষণ কী। জানুন এর থেকে নিজেকে বাঁচানোর ১০টি উপায়

নিদ্রাহীনতা (Sleep Apnea)

স্লিপ অ্যাপনিয়া হল একটি ঘুমের ব্যাধি যার কারণে আপনি হয় পর্যাপ্ত ঘুম পান না বা পর্যাপ্ত ঘুমের পরেও ক্লান্ত বোধ করেন। রাতে ঘুমানোর সময় ঘন ঘন শ্বাসকষ্টের কারণে, আপনি ঘন ঘন জেগে ওঠেন যার কারণে আপনি সঠিক মাত্রায় ঘুম পেতে পারেন না এবং দীর্ঘক্ষণ ঘুমানোর পরেও আপনি পরের দিন অলস বোধ করেন।

আরো পড়ুন: জানুন Black Friday এর উৎস কোন দেশ, তাৎপর্য, নামের ইতিহাস

জলশূন্যতা (Dehydration)

আমাদের ব্যস্ত সময়সূচীর কারণে, আমরা প্রায়শই সারা দিন সঠিক পরিমাণে জল গ্রহণ করতে ভুলে যাই। জল খাওয়াতে অনীহা – আমাদের এই অসাবধানতাও আমাদের ক্লান্তি বাড়ায় এবং এক্ষেত্রে মাথাব্যথার সম্ভাবনাও বেড়ে যায়। এই কারণে আপনার দৈনন্দিন কাজ প্রভাবিত হয়।

গবেষকরা পরামর্শ দেয় যে দীর্ঘস্থায়ী ডিহাইড্রেশনও অনিদ্রার কারণ হতে পারে। তাই সারাদিনে কমপক্ষে তিন থেকে চার লিটার জল খাওয়া অবশই দরকার তবে এর বেতিক্রম হলো ডায়াবেটিস রোগী।

Read More:  Stress: স্ট্রেস এবং টেনশন কমানোর ১৪টি সহজ উপায়

আরো পড়ুন: ঘরে বসে মেয়েদের ওজন কমানোর ৬ টি সেরা উপায়

অনিদ্রা (insomnia)

আপনার যদি রাতে অনিদ্রার সমস্যা বা আপনি ঘন ঘন জেগে ওঠেন, রাতে না ঘুমানোর পরে আবার ঘুমিয়ে পড়তে অসুবিধা হয় এবং সকালে ঘুম থেকে উঠার পরও এই লক্ষণগুলি অনুভব করেন তবে এটি অনিদ্রা জনিত সমস্যা হতে পারে।

অনিদ্রা একটি ঘুমের ব্যাধি যা আপনার রাতে ঘুমাতে বাধা সৃস্টি করে এবং সারাদিন শরীরে ক্লান্ত বোধ থাকবে।

আরো পড়ুন: জানুন Meditation এর উপকারিতা, কৌশল, সময়

অত্যধিক ক্যাফিন গ্রহণ

বিশেষ করে অফিসে কাজ করার সময়, যখন আমাদের এনার্জি ফুরিয়ে যায় এবং আমরা ক্লান্ত বোধ করি, তখন কফি বা চা আমাদের জন্য খুবই লোভনীয়।

কিন্তু এর অত্যধিক পরিমাণ প্রবেশ আমাদের শরীরের উপরও বিপরীত প্রভাব ফেলতে পারে। আমরা যখন এটি সেবন করি, তখন আমাদের শরীরে ক্যাফেইনের প্রভাব দীর্ঘ সময় ধরে থাকে। এটি আমাদের শরীরে অ্যাড্রিনাল হরমোন বাড়ায়, যার কারণে আমরা আবার সক্রিয় এবং উদ্যমী হয়ে উঠি।

আমাদের শরীর থেকে এর প্রভাব কমতে শুরু করলেই হঠাৎ করে আমরা আবার ক্লান্ত বোধ করতে শুরু করি। তাই চা-কফি খাওয়া কমিয়ে দিন।

আরো পড়ুন: কিডনি পরিশ্রুত করার ১০ টি ঘরোয়া উপায়

ঘুমানোর আগে ফোন ব্যবহার করা

এই সাধারণ একটা জীবন যাত্রার অভ্যাস ত্যাগ করা এখনকার খুবই কঠিন। ফোন থেকে নির্গত কৃত্রিম আলো মস্তিষ্কে সংকেত দেয় যে এটিকে জাগ্রত থাকতে হবে কারণ এটি দিনের আলোর মতো দেখায়।

এছাড়াও আমরা মোবাইল-এ রাতে যে কাজ করি তার একটা effect আমাদের ঘুমের মধ্যে পরে, যার কারণে রাতে কম ঘুম হয় এবং তারপর সারাদিন ক্লান্ত লাগে।

আরো পড়ুন: জানুন PPF Account এর ১১ রকমের সুবিধা, অসুবিধা

সপ্তাহান্তে দেরিতে ঘুমানো এবং দেরিতে ঘুম থেকে ওঠা

আমরা সবাই সপ্তাহান্তে নিজেদেরকে এই নিয়মের মধ্যে দিয়ে নিয়ে যাই । আমরা শুক্র ও শনিবার রাতে দেরি করে জেগে থাকি এবং টিভি, ওয়েব সিরিজ দেখি, যার কারণে পরের দিন দেরি করে ঘুম থেকে উঠি। এর ফলে আমাদের ঘুমের চক্র ব্যাহত হয়। একে জৈবিক ঘড়িও বলা হয়।

Read More:  অকালে চুল পেকে যাচ্ছে? চুলের অকালপক্বতা থেকে বাঁচতে এই গুলো মেনে চলুন

এর মানে হল যে আমাদের শরীরের একই সময়ে ঘুমানোর অভ্যাস রয়েছে যা আপনি সপ্তাহান্তে নষ্ট করেন এবং এটি ঘুমের দিকে পরিচালিত করে না।

আরো পড়ুন: বাস্তু মেনে বাড়ি সাজিয়াছেন? না হলে আসতে পারে বিপদ। রইলো বিপদ এড়ানোর ১০ রকম উপায়

অপরিকল্পিত জীবনধারা

আপনি যদি সারাদিন বসে কাজ করেন বা কম্পিউটারে সামনে বসে কাজ করে থাকেন তবে এই একটি কারণ আপনার ঘুমকেও প্রভাবিত করে। আপনি যখন সারাদিন নিষ্ক্রিয় থাকেন বা খুব কম নড়াচড়া করেন, তখন এটি আপনাকে রাতে ভালো ঘুমাতে দেয় না, যার কারণে আপনি সারাদিন অলস এবং ক্লান্ত বোধ করেন।

আপনি যদি ব্যায়াম করেন, তাহলে আপনি অনুভব করবেন যে ওয়ার্কআউট সেশনের পরে আপনি রাতে ভালো ঘুম পাচ্ছেন।

আরো পড়ুন: স্মৃতিশক্তিকে বাড়াতে এই কাজ গুলো অবশই অনুসরণ করুন।

Leave a Comment