খাওয়ার ইচ্ছা কি কমে গেছে ? তাহলে শরীরে কি এই পুষ্টির অভাব আছে

Share It!

অনেক সময় আপনি নিশ্চয়ই অনুভব করেছেন যে আপনার খাওয়ার ইচ্ছা ইতিমধ্যে অনেক কমে গেছে এবং সরাসরি এর প্রভাব শরীরে উপর পরতে শুরু করেছে। মাঝে মাঝে কাজ করতে করতে আপনি দ্রুত ক্লান্ত হয়ে পড়েন, শরীর তখন কিছুতেই আর টানে না। এর ফলে ওজনও দ্রুত কমতে শুরু করে। এমন পরিস্থিতিতে সাবধানতা অবলম্বন করা খুবই জরুরী তা না হলে শরীর ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে পড়বে। 

মূলত জিঙ্কের অভাবে আমাদের শরীরে খিদে চলে যায়। ভারতের বিখ্যাত পুষ্টি বিশেষজ্ঞ নিখিল ভাতস বলেন, কারো যদি খিদে না লাগে তাহলে খুব সম্ভব তাদের শরীরে জিঙ্কের ঘাটতি রয়েছে।

জিঙ্ক কেন গুরুত্বপূর্ণ?

জিঙ্ক, এমন একটি খনিজ যা আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে তোলে। আমাদের শরীর জিঙ্ক তৈরি করে না, এর জন্য জিঙ্ক সমৃদ্ধ খাবার বা পরিপূরক খেতে হবে। দৈনন্দিন কাজকর্ম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য জিঙ্ক অপরিহার্য। আপনি ডায়েটে এমন জিনিস অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন যাতে জিঙ্কের ঘাটতি সহজেই পূরণ করা যায়। 

জিঙ্ক খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি পুষ্টি উপাদান। জিঙ্ক শুধু শরীরকে সুস্থ রাখে না, হার্টকে সুস্থ রাখতে, রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে এবং ত্বককে সতেজ  রাখতে সাহায্য করে। এর সাথে, এটি আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও সহায়তা করে। আপনি যদি খিদে পাওয়ার হ্রাস এড়াতে চান, তাহলে জিঙ্ক সমৃদ্ধ খাবারের পরিমাণ বাড়াতে হবে।

আরো পড়ুন: ঘুম বা ক্লান্তি দূর করতে এই কাজগুলো অবশই করুন 

জিঙ্কের অভাবে কী কী লক্ষণ দেখা দেয়

– খিদে পাওয়া কমে যাবে 

– ওজন কমানো

– দুর্বল বোধ করা

Read More:  বাস্তু মেনে বাড়ি সাজিয়াছেন? না হলে আসতে পারে বিপদ। রইলো বিপদ এড়ানোর ১০ রকম উপায়

– মানসিক স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব

– ঘন ঘন ডায়রিয়া

– চুল পরা

– বিলম্বিত ক্ষত নিরাময়

– স্বাদ এবং গন্ধের অভাব

আরো পড়ুন: দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে ডায়েটে এই জিনিসগুলো অবশ্যই রাখুন 

জিঙ্কের উপকারিতা

১. বারবার ডায়রিয়ার সমস্যা জিঙ্ক সেবনের মাধ্যমে কাটিয়ে ওঠে, বিশেষ করে শিশুর ডায়রিয়া হলে জিঙ্ক সাপ্লিমেন্ট খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। 

২. জিঙ্ক ত্বক মেরামত করে সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে এবং যেকোনো ক্ষত দ্রুত সারাতে সাহায্য করে। 

৩.জিঙ্ক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট গুণে ভরপুর। এটি অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করে।  

৪. জিঙ্ক পুরুষদের উর্বরতা এবং অন্যান্য যৌন সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। 

৫. জিঙ্ক হাড়কে সুস্থ রাখতে এবং গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি অস্টিওপরোসিস প্রতিরোধেও সাহায্য করে। 

৬. জিঙ্ক সেবনের মাধ্যমে অনেক ধরনের স্নায়বিক সমস্যাও কমানো যায়। 

৭. জিঙ্ক সর্দি, কাশি ও সর্দির সমস্যা কমাতেও সাহায্য করে। 

8. অনাক্রম্যতা শক্তিশালী করতেও জিঙ্ক প্রয়োজন। জিংক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। 

জিঙ্কের ঘাটতি মেটাতে প্রয়োজনীয় খাদ্য  

দই

দই আমাদের বেশিরভাগের দৈনন্দিন খাদ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ, আমরা সবাই জানি যে এটি হজমশক্তির উন্নতি ঘটায়, সেই সাথে এটি শরীরে জিঙ্কের ঘাটতি পূরণ করে। 

কাজুবাদাম

কাজু এমন একটি শুকনো ফল যা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী বলে মনে করা হয়, এতে জিঙ্ক ছাড়াও ভিটামিন এ, ভিটামিন কে এবং ফোলেট পাওয়া যায়। তাই এটি নিয়মিত সেবন করতে ভুলবেন না। 

সাদা ছোলা 

আপনি নিশ্চয়ই ছোলা আকারে সাদা ছোলা অনেকবার খেয়েছেন। জিঙ্ক ছাড়াও এতে ফাইবার এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টও পাওয়া যায়, আপনি যদি সাদা ছোলা জলে ভিজিয়ে খান তাহলে অবশ্যই উপকার পাবেন। 

তরমুজের বীজ

আমরা সাধারণত তরমুজের বীজকে অকেজো বলে ফেলে দিই, কিন্তু আপনি জেনে অবাক হবেন যে এটি জিঙ্কের একটি সমৃদ্ধ উৎস, যা আপনার খিদে বাড়িয়ে দিতে পারে।

Read More:  আপনি কি মাঝে মাঝে ভুলে যাচ্ছেন ? স্মৃতিশক্তিকে বাড়াতে এই কাজ গুলো অবশই অনুসরণ করুন।

আরো পড়ুন: 5G Technology কি? 5G Network এর ক্ষতিকারক দিক

Leave a Comment