ফুচকা খাওয়ার জন্য শরীরে হতে পারে এইসব সমস্যা, তাই খাবার আগে এইগুলো জেনে নিন

Share It!

ফুচকার নাম শুনলেই কার মুখে জল আসবে না! ফুচকা প্রায় আমাদের সকলের কাছে খুব প্রিয়। ৮ থেকে ৮০ মোটামুটি সবাই ফুচকা খেতে ভালোবাসে। আমরা যদি রাস্তার খাবারের কথা বলি তবে ফুচকার বিক্রি সবচেয়ে বেশি। এটি সর্বত্র সহজলভ্য এবং খুব পছন্দও হয়। আসলে, জলের মিষ্টি এবং টক গন্ধে সবাই ফুচকার দিকে আকৃষ্ট হয়।

কিন্তু জানেন কি ফুচকা খাওয়ার একদিকে যেমন অনেক উপকারিতা রয়েছে, তেমনি রয়েছে নানা অপকারিতাও।

ফুচকা খাওয়ার জন্য শরীরে হতে পারে এইসব সমস্যা

আসলে, প্রতিটি রাস্তার মোড়ে ফুচকা পাওয়া যায়। বিশুদ্ধ জল ও পরিচ্ছন্নতার তৈরি এসব খুঁজে পাওয়া যায় না সর্বত্র। এই কারণে ফুচকা কখনও কখনও আমাদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে।

তাই আজ আমরা আপনাদের জানাচ্ছি ফুচকার সুবিধা-অসুবিধা সম্পর্কে। এছাড়াও, গোলগাপ্পা সম্পর্কিত বিশেষ জিনিসগুলি, যা তাদের খেতে শৌখিন তাদের জানা উচিত।

কোথায় কোথায় ফুচকা কি নাম পরিচিত

হরিয়ানা – এখানে প্রিয় ফুচকা বাতাশে নামে বিখ্যাত। এর ভিতর মিষ্টি চাটনি আর টক দেওয়া জল ভর্তি থাকে।

উত্তরপ্রদেশ – লখনউতে পাতাশি এবং পশ্চিম উত্তরপ্রদেশে পাদাকা বলা হয়। এখানে বিভিন্ন ধরনের জল দিয়ে পরিবেশন করা হয়। হিং এর জল মতো, কাঁচা আমের জল, মিষ্টি, তিক্ত, টক অনেক ধরনের জল দেওয়া হয়।

হায়দ্রাবাদ, ছত্তিশগড় এবং উড়িষ্যা – এখানকার ফুচকা খুব কুড়কুড়ে। এ কারণেই খাওয়ার সময় মুখে কাঁচা শব্দ করে ফেটে যায়। এর জল গাঢ় সবুজ বর্ণের।

মহারাষ্ট্র – ফুচকাকে এখানে পানিপুরি বলা হয়। মুম্বাইতে এটি তেঁতুলের চাটনির সাথে পরিবেশন করা হয়।

গুজরাট – এখানে একে পাকোরি বলা হয়। এটি ভরাট করার জন্য সেভ এবং পেঁয়াজ ব্যবহার করা হয়। যা তার পরীক্ষাকে পুরোপুরি বদলে দেয়।

Read More:  গলা ব্যথা কমানোর সহজ উপায়: Throat Pain Relief in Bengali

মধ্যপ্রদেশ – কেউ যদি আপনাকে জিজ্ঞেস করে আপনি কি টিক্কি খেতে চান? তাই আপনিও বুঝবেন আমার মত আলু টিক্কি মানে।

কিন্তু হোশাঙ্গাবাদ, MP তে ফুচকাকে টিক্কি বলা হয়।

কলকাতা – আর কলকাতায় কি বলে সেটা আমরা সবাই জানি। এটি ছোলা এবং আলুর মিশ্রণ দিয়ে পরিবেশন করা হয়। এর রঙ কিছুটা গাঢ় এবং এটি আকারেও বড়। যদি আমরা এর জল সম্পর্কে কথা বলি, তাহলে জল খুব তীক্ষ্ণ এবং অত্যন্ত টক।

আরো পড়ুন: [CORN] কর্ন খাওয়ার ৫টি উপকারিতা। সাথে ২টি সহজ Recipe

ফুচকার জল খারাপ কিনা কি করে জানবেন

আপনি চাইলে নিজেও পরীক্ষা করে দেখতে পারেন যে জলে ভেজাল আছে কি নেই। জলে রাসায়নিক পদার্থ থাকলে ফুচকা খাওয়ার পর আপনার দাঁতে কিছু জমে গেছে বলে মনে হতে থাকে। তাহলে ভুগতে হবে এতে রাসায়নিক যোগ করা হয়েছে।

ফুচকা খাওয়ার পরপরই যদি পেটে জ্বালা অনুভূত হয়, তবে এটি একটি লক্ষণ যে জলে রঙ করার জন্য টারটারিক অ্যাসিড, অ্যাসিটিক অ্যাসিড এবং ঘন এসেন্স ব্যবহার করা হয়েছে।

আরো পড়ুন: পেটের মেদ কমানোর সেরা ১৫ টি উপায়

ফুচকা খাওয়ার ফলে শরীরে কি হতে পারে

যাদের আলসার আছে তাদের একদম ফুচকা খাওয়া উচিত না। এতে শরীর অবস্থা কিউব খারাপ হয়ে যাই, পেট জ্বালা করে।

অনেক ফুচকা স্বাস্থ্যবিধির যত্ন নেয় না। সেজন্য ফুচকা খাবেন সেখান থেকেই যেখানে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা আছে, সবকিছু ঢেকে রাখা হয়েছে এবং ফুচকা বিক্রেতারও গ্লাভস ব্যবহার করছে। যেকোন অনেক ফুচকাওয়ালা মুখে মাস্ক ও পড়েন।

ব্যায়ামের আগে এবং পরে ফুচকা খাওয়া উচিত নয়, অন্যথায় তারা ক্ষতি করে এবং আপনার অনেক সমস্যা হতে পারে।

ফুচকা ছোলা বা ছোলা ভর্তার পরিবর্তে হয় ফুচকাকে সাধারণ চাটনি দিয়ে খান অথবা মুগ ডাল দিয়ে ভরেও অনেকে খান। ছোলা দিয়ে ফুচকা একটু ভারি হয়ে যায়।

Read More:  Stress: স্ট্রেস এবং টেনশন কমানোর ১৪টি সহজ উপায়

বর্ষাকালে স্বাস্থ্যবিধির বিশেষ যত্ন নিতে হবে, তা না হলে পেট সংক্রান্ত নানা ধরনের রোগ দেখা দেয়। অনেক জায়গায় ফুচকার জলের সাথে বৃষ্টির জল মিশিয়ে যায়। তাই বৃষ্টিতে ফুচকা খাওয়া এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন।

আরো পড়ুন: ভারতের নতুন সংসদ ভবন: একটি বিস্ময়কর সৃষ্টি

ফুচকা খাওয়ার সঠিক সময়

প্রথমত সন্ধ্যায় বা রাতে ফুচকা খাওয়ার ফলে পেট ভারী হয় এবং ওজনও বৃদ্ধি পায়। সেজন্য ফুচকা সবসময় বিকেলে খাওয়া উচিত।

দ্বিতীয়ত, রাতের খাবারের আগে গোলগাপ্পা বা ফুচকা খেয়ে নিলে খিদে মরে যায়। এই কারণে, বেশি রাতে আবার খিদে লাগে এবং আমরা আরও অনেক কিছু খেতে শুরু করি, যার কারণে অকারণে পেট খারাপ হয়।

আরো পড়ুন: ওজন বাড়ছে ? ঘরে বসে মেয়েদের ওজন কমানোর ৬ টি সেরা উপায়

ফুচকার ইতিহাস

শেফ কুনাল কাপুর বলেছেন যে একবার শাহজাহানের রাজত্বকালে দিল্লি এবং ইউপিতে কলেরা ছড়িয়ে পড়েছিল। কলেরা ছিল একটি রোগ যা নোংরা জল খাওয়ার কারণে ছড়াত। এরপর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিশেষ যত্ন নিতে বলা হয় এবং সবাইকে জল ফুটিয়ে খাওয়ার করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

কিন্তু ফুটানো জল খাওয়ার করার জন্য খুবই বিস্বাদ ছিল এবং স্বাদ দেওয়ার জন্য জলেতে মশলা যোগ করা হতো। মিষ্টি যোগ করা হয় এবং টক ইত্যাদি যোগ করে পানযোগ্য করা হয়। এখান থেকেই পানিপুরি বা ফুচকার উদ্ভাবন।

আরও বলা হয়েছিল, বিভিন্ন মসলা মিশিয়ে জল পান করলে শরীরের ভেতরের সব ব্যাকটেরিয়া ও রোগ মারা যাবে। এই কারণেই হিং এবং ধনেপাতা জলে যোগ করা হয়েছিল। এখন সেই জল খালি পান না করে ফুচ্কার ভিতরে ভরে খেতে শুরু করে এবং এখান থেকেই শুরু হল আমাদের সকলের প্রিয় সুস্বাদু ফুচকা।

আরো পড়ুন: খাওয়ার ইচ্ছা কি কমে গেছে ? তাহলে শরীরে কি এই পুষ্টির অভাব আছে

Leave a Comment