গলা ব্যথা কমানোর সহজ উপায়: Throat Pain Relief in Bengali

Share It!

পরিবর্তনশীল আবহাওয়া এবং আবহাওয়ার খামখেয়ালিপনার কারণে প্রায়ই মানুষের গলা ব্যথা হয়। ইনফেকশনের কারণেও অনেক ধরনের গলার সমস্যা হয়ে থাকে। গলায় ইনফেকশন হলে প্রধান উপসর্গ হলো ব্যথা, কাশি বা জ্বর।

throat pain

গলার সংক্রমণ একটি সাধারণ সমস্যা, যা ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ, ভাইরাল সংক্রমণ এবং অ্যালার্জির কারণে হতে পারে। অনেক সময় আবহাওয়ার পরিবর্তন বা Flue এর কারণে গলায় ইনফেকশন হয়। যখন গলার সংক্রমণ হয়, লোকেরা প্রায়ই সেই লক্ষণগুলির দিকে মনোযোগ দেয়না। তবে শরীরের অন্যান্য অংশেও অনেক সময় এই কারণে উপসর্গ দেখা যায়।

পরিবর্তনশীল আবহাওয়ার কারণে যদি আপনার গলা ব্যথা, কাশি বা ব্যথা হয়, তাহলে আপনার গলায় ইনফেকশন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আসুন জেনে নিই গলা ব্যথা বা গলার সংক্রমণের লক্ষণ, প্রতিরোধের উপায় ও চিকিৎসা।

কাদের গলার সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি?

ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাসের কারণে আপনার গলার সংক্রমণ হতে পারে। যদিও যেকোনো বয়সের লোকই গলার সংক্রমণে ভুগতে পারে, তবে এই সমস্যাটি সবচেয়ে বেশি দেখা যায় ছোট শিশুদের মধ্যে। যেসব শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল তারা সহজেই গলায় সংক্রমণ জনিত বেপারে আক্রান্ত হয়।

আরো পড়ুন: নতুন বছর থেকে Google Pay, phonepe সব বন্ধ হতে চলেছে এইসব ব্যবহারকারীদের

গলা সংক্রমণের লক্ষণ

  • গলা ব্যথা এবং ব্যথা
  • খাদ্যদ্রব্য গিলতে অসুবিধা
  • টনসিলে ফোলা ও ব্যথা
  • টনসিলে সাদা স্তর জমে
  • গলা লাল হওয়া
  • কন্ঠস্বর এবং কর্কশতা পরিবর্তন
  • গলা শুকিয়ে যাওয়া
  • জিহ্বায় লাল ফুসকুড়ি
  • জ্বর ও কাশি
  • মাথাব্যথা

গলার সংক্রমণের কারণ

  • ঠান্ডা লাগা এবং ভাইরাল সংক্রমণের কারণে গলার সংক্রমণ হতে পারে। গলা ব্যথা, ফোলা ও জ্বরের মতো সমস্যা হতে পারে।
  • ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের কারণেও গলার সংক্রমণ হয়ে থাকে। এই কারণে, গলা এবং টনসিলে স্ট্রেপ থ্রোট এবং সংক্রমণের সমস্যা হতে পারে।
  • অ্যালার্জির কারণেও গলার সংক্রমণ হতে পারে। দূষণ, পোষা প্রাণী, দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বা অন্যান্য কারণে অ্যালার্জি হতে পারে।
  • গলায় আঘাতের কারণে, একজন ব্যক্তির ভোকাল কর্ড এবং পেশীতে টান পড়তে পারে, যার কারণে গলা ব্যথার অভিযোগ রয়েছে। এই জন্য দীর্ঘস্থায়ী গলা ব্যথা কারণ হতে পারে।
Read More:  [FAST FOOD] জাঙ্ক ফুড শরীরে কিরকম প্রভাব ফেলতে পারে - জানুন ৯টি সমস্যা

গলা সংক্রমণ প্রতিরোধ

Throat Pain

  • যদি আপনার গলা ব্যথা বা অন্যান্য উপসর্গ থাকে, তাহলে মানুষের থেকে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখুন।
  • পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার যত্ন নিন। খাবার খাওয়ার আগে ও পরে ভালো করে হাত ধুয়ে নিন।
  • কাশি বা হাঁচির সময় মুখে রুমাল রাখুন।
  • ধূমপান বা অ্যালকোহল সেবন করবেন না। ধূমপান গলার সংক্রমণকে আরও খারাপ করতে পারে।
  • যেখানেই বায়ু দূষণ বা ময়লা, সেখানেই গলায় সংক্রমণের আশঙ্কা থাকে। নোংরা জায়গায় যাওয়া থেকে বিরত থাকুন।
  • প্রচুর পরিমানে জল সেবন করুন তবে ঠান্ডা জল খাওয়া থেকে একদমই বিরত থাকতে হবে।

টনসিলের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়

আমাদের শরীরের ভেতরে মুখ-গলা এবং নাক দিয়ে জীবাণু প্রবেশে বাধা দেয়াই টনসিলের কাজ। কিন্তু বাধা দিতে গিয়ে অনেক সময় টনসিল নিজেই আক্রান্ত হয়ে পড়ে। বিশেষ করে আবহাওয়া পরিবর্তনের সময় এই রোগে বেশি আক্রান্ত হয় মানুষ।

টনসিলে আক্রান্ত হলে শুধুমাত্র খাবার গিলতে নয় কথা বলতেও বেশ অসুবিধা হয়। গলাব্যথার কারণে কাশতে গেলেও কষ্ট হয়। বাজারে টনসিলের ব্যথা কমাতে নানা ধরনের ওষুধ রয়েছে ঠিকই। কিন্তু ঘরোয়া উপায়েও এর মোকাবিলা করা যায়।

আসুন জেনে নেই টনসিলের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে-

লেবু-মধু

এক গ্লাস গরম জলে একটা পাতিলেবুর রস, এক চামচ মধু ও একটু লবণ  ভালোভাবে মিশিয়ে সেবন করুন। টনসিলে ব্যথা হলে মাঝেমাঝেই সেটা পান করুন।

লবণ পানি

এক গ্লাস গরম জলেতে একটু লবণ দিয়ে তা থেকে ভাপ নিলে সহজেই দূর হয় টনসিলের ব্যথা। ভাপ নেওয়ার সময় কান-মাথা কোনো কিছু দিয়ে ঢাকা দিয়ে বসুন। পাখার হাওয়া বা AC থেকে দূরে থাকুন।

গ্রিন টি ও মধু

আধা চামচ গ্রিন টি ও এক চামচ মধু দিয়ে মিনিট দশেক ফুটিয়ে নিন। দিনে এই মিশ্রণ বার তিনেক এই খান। গ্রিন টি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, এটি জীবাণুর সঙ্গে লড়তে সাহায্য করে। মধুর অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল শক্তি টনসিলে সংক্রমণ থেকে রেহাই দেয়।

Read More:  হার্ট অ্যাটাক এড়ানোর ১০টি সহজ উপায়। হার্ট অ্যাটাক এর লক্ষণ এবং প্রতিকার

হলুদ ও দুধ

এক কাপ গরম দুধে সামান্য হলুদ মিশিয়ে নিন। হলুদ অ্যান্টি ইনফ্লেমটরি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভালো কাজ করে। গলা ব্যথা দূর করতে এর জুড়ি মেলা ভার। তাই হলুদ মেশানো গরম দুধ যেমন সর্দি-কাশি দূর করে, তেমনই টনসিলের ব্যথা দূর করতেও বিশেষ কার্যকরী ভূমিকা নেয়।

গলা সংক্রমণের চিকিত্সা

গলা বেথা দূর করার মূল চিকিৎসা হলো হালকা উষ্ণ গরম জলে একটু লবন মিশিয়ে গার্গল করা। এটি দিনে দুই থেকে তিনবার নিয়মিত চার পাঁচদিন করে যেতে হবে।

  • গলায় সংক্রমণ হলে ডাক্তার আপনাকে অ্যান্টিবায়োটিক দিতে পারেন। চিকিৎসকের পরামর্শের পরই যে কোনো ওষুধ খান।
  • গুরুতর ক্ষেত্রে, গলা সংক্রমণের চিকিত্সার জন্য একটি অস্ত্রোপচার পদ্ধতিও রয়েছে, যেখানে টনসিলগুলি সরানো হয়।
  • অনেক ঘরোয়া প্রতিকার গলার সংক্রমণে উপকারী হতে পারে। এতে রোগী নুন, রসুন, আপেল সিডার ভিনেগার, মধু, দুধ ও হলুদ, আদা, বাষ্প ও লিকোরিস ইত্যাদি ব্যবহার করেন।

দ্রষ্টব্য: এই নিবন্ধটি মেডিকেল রিপোর্ট থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি করা হয়েছে।

আরো পড়ুন:

Leave a Comment