আপনি কি ভয় পান ? জানুন ভয়কে দূর করার সহজ উপায় I Bhoike dur korar sahaj upay in bengali

Share It!

প্রতিটি মানুষই কিছু না কিছু ভয় পেয়ে থাকে। আর এর পিছনে থাকে কোনো বিশেষ কারণ। আসলে ভয়কে দূর করার সহজ উপায় আছে। কেউ যদি বলে যে সে কিছুতেই ভয় পায় না, তাহলে তা হবে মিথ্যা। সবাই কোনো না কোনো কারণে ভয় ভয় অনুভব করে। কিন্তু কিছু মানুষ এটি মোকাবেলার জন্য সঠিক উপায় অবলম্বন করে, যার কারণে তারা জীবনের অনেক ভয়কে পিছনে ফেলে এগিয়ে যায়। ভয় এমন একটি জিনিস, যা আমাদের এগিয়ে যেতে বাধা দেয়।

ভয়কে দূর করার সহজ উপায়

ভয় কাটিয়ে ওঠার উপায় কী

আজকাল আমাদের চারপাশে এত চাপ, টেনশন, স্ট্রেস থাকে যে মন চাইলেও ভালোভাবে কোনো কিছু চিন্তা করতে পারে না। সব কিছুতেই বাধা সৃষ্টি করে। খুব কম লোকই আছে যারা একে অপরকে উৎসাহিত করে। এগিয়ে যাওয়ার দৌড়ে মানুষ একে অপরকে পেছনে ফেলে।

চারিদিকে ভুল পরিবেশের কারণে মানুষ বিশ্বাস হারিয়ে ফেলছে, আরও নিজের উপর আন্তবিশ্বাস হারিয়ে ফেলছে। এই চিন্তাটা আমাদের ভিতরে বাসা বেঁধে যায়, তারপর কোন না কোনভাবে তা ভয়ের আকারে বেরিয়ে আসে। যার ফলসরূপ জীবন তলিয়ে যাচ্ছে এক অন্ধকারে।

কত প্রকারের ভয় আছে ?

১. ফেল করার ভয়।

২. কম্পিটেশনের সামনে দাঁড়ানোর ভয়।

৩. সাফল্য না পাওয়াকে ভয়।

৪. মৃত্যুর ভয়।

৫. কাছের মানুষকে হারানোর ভয়।

ভয়ের পাবার আসল কারণগুলো কী

পরীক্ষার সময় পড়াশুনা না করলে আমরা ফেল করার ভয়ে থাকি

অনেক সময় আমাদের বাবা-মায়ের উচ্চ প্রত্যাশার কারণে আমরা ফেল করার ভয় পাই।

তারা কিছু বলার আগেও ভয় পায়, কারণ মনে হয় সামনের মানুষটি তা প্রত্যাখ্যান করবে।

মানুষের সামনে যেতে ভয় পায়, অপমানে ভয় পায়।

অফিসে সঠিক কাজ না করার জন্য বসের থেকে ভয় পাওয়া।

অনেকে আছে তাদের ভবিষৎ নিয়ে ভয় পায়।

খুব কাছের মানুষ বা বাড়িতে কোনো অসুস্থ মানুষ থাকলে তাকে নিয়ে ভয় পায়।

সংসারের অনেক ঝামেলা থেকে মানুষ ভয় পেতে পারে।

আরও পড়ুন: Meditation এর উপকারিতা, কৌশল, সময়

Read More:  বুদ্ধির ধাঁধা: একটি গরু দুধ দেয়, একটি মুরগি ডিম দেয়, কে দুধ এবং ডিম উভয়ই দেয়? বলুনতো দেখি !

ভয়ের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

মানুষ ভয়ের কারণে ডিপ্রেশনে চলে যায়।

নেতিবাচক চিন্তার কারণে একজন ব্যক্তি আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলে।

মাঝে মাঝে সে আত্মহত্যার কথাও ভাবে।

মিথ্যা বলতে শুরু করে যা একদমই কাম্য নয়।

জীবনে এগিয়ে যায় না।

ভয়ে সে তার সঠিক কথাও বলতে পারে না।

ভয়ের কারণে সে তার প্রতিভাকে বিশ্বের সামনে নিয়ে আসে না।

আরও পড়ুন: মানসিক স্বাস্থ্যকে দৃঢ় করার ৮ টি সুপারফুড [Super-food]

ভয়কে দূর করার সহজ উপায়

ইতিবাচক চিন্তাভাবনা তৈরি করুন:

ভয় তখনই আসে যখন আমরা পুরানো খারাপ, অসত্য জিনিসগুলিকে আমাদের মনে বিশ্বাস করি। আমরা মনে করি এটাই একমাত্র সত্য, এর বাইরে আর কিছু হতে পারে না। আমরা আমাদের মনকে নেতিবাচক চিন্তায় পূর্ণ করি, যার পরে ভাল কিছুর জন্য কোন জায়গা অবশিষ্ট থাকে না। নিজেকে সম্পূর্ণ ইতিবাচক রাখুন, এনার্জেটিক রাখার চেষ্টা করুন।

ভালো ভাবনা চিন্তা করা:

ইতিবাচক বা Positive চিন্তা করলে ভালো হবে। বলা হয় আমরা যা ভাবি তাই হয়। আমাদের চিন্তার মধ্যে এত শক্তি আছে যে আকর্ষণের মাধ্যমে যা ইচ্ছা তাই করতে পারে। শয়তান ভয়ের মত ইতিবাচকতা থেকে পালিয়ে যায়। এ ছাড়া আপনার চিন্তাভাবনা নিয়ন্ত্রণ করুন। বসে বসে কিছু ভাববেন না। কখনও কখনও আমাদের চিন্তা নিজেই আমাদের শত্রু হয়ে ওঠে।

আরও পড়ুন: Stress: স্ট্রেস এবং টেনশন কমানোর ১৪টি সহজ উপায়

পজিটিভ থাকার উপায়:

ইতিবাচক (Positive minded) মানুষের সাথে থাকুন, তাদের সাথে কথা বলুন, তাদের অভিজ্ঞতা জানুন।

ইতিবাচক টিভি সিরিয়াল দেখুন, বই পড়ুন। ভালো বই পড়লে জ্ঞান বাড়ে আর তার সাথে অনেক ভালো চিন্তা ভাবনা মনের মধ্যে আসে। টিভিতে শিক্ষা মূলক প্রোগ্রাম দেখলে অনেক কিছু শেখা যায়।

ব্যর্থতায় হতাশ হবেন না, ইতিবাচক চিন্তা নিয়ে এগিয়ে যান।

অতীতকে পিছনে ফেলে দিন

আমাদের কিছু পুরনো খারাপ অভিজ্ঞতা রয়ে গেছে, যার কারণে আমরা এগিয়ে যেতে পারি না, সেগুলোকে আমরা মুঠোয় বেঁধে রাখি। অতীতের খারাপ ঘটনাকে সম্পূর্ণ ভুলে যেতে হবে বা পুরানো জিনিস যা আপনাকে সেই সময় কষ্ট দিয়েছিল তা এখন আর ভাবলে চলবেনা। অতীত অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিয়ে নির্ভয়ে এগিয়ে যান। আমরা যত ভয়ে ভীত হই, ততই আমাদের ভয় দেখাবে।

আপনি যখন ভয় পান তখন গভীর শ্বাস নিন

এটি ভয় দূর করার সবচেয়ে ভালো উপায়। যে কোন কিছুতে ভয় পান, তখন একটু বসুন। গভীর, দীর্ঘ শ্বাস নিন। এভাবে ৫ মিনিট করুন, শান্তি পাবেন।

ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাববেন না:

মাঝে মাঝে আমরা কালকে ভয় পাই। আগামীকাল কি হবে, আমাদের ভবিষ্যৎ কেমন হবে, আমরা কি চাকরি পাব কি না, বিয়ে করব কি করব না, আমাদের সন্তানদের ভবিষ্যৎ কেমন হবে, আমাদের বাবা-মা রাজি হবেন কি না। এই ভেবে আমরা আমাদের আজকের দিনটাকে নষ্ট করি।

Read More:  ফ্যাটি লিভারের ডায়েট চার্ট। Diet Chart for Fatty Liver in Bengali

ভবিষ্যতের উপর আমাদের কোন জোর নেই, আমরা জানি না আগামীকাল আমরা বাঁচব না মরব। ঈশ্বর বলেন, “আমরা দুশ্চিন্তা করে আমাদের জীবনে আর একটি দিন যোগ করতে পারি না, আমরা যদি এত ছোট কাজও করতে না পারি তবে চিন্তার কী আছে, আগামীকাল নিজের যত্ন নেবে, আজকের জন্য আজকের কথা এবং দুঃখ যথেষ্ট।” বর্তমানের মধ্যে বেঁচে থাকুন, ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে আমাদের আজকের দিনটিকে নষ্ট করে দেবেন না।

আরও পড়ুন: স্মৃতিশক্তি কি দুর্বল হয়ে যাচ্ছে? স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধির উপায়

আত্মবিশ্বাসী হওয়ার চেষ্টা করুন:

অন্যদের বিশ্বাস করা একটি ভাল জিনিস, কিন্তু আজকের বিশ্ব আমাদের তা করতে দেয় না। সর্বপ্রথম ভগবানের উপর ভরসা করুন। মনে রাখবেন ঈশ্বর আমাদের জন্য, তিনি আমাদের সাথে আছেন, যারা তাঁকে বিশ্বাস করে তিনি কখনই তাদের নিরাশ করেন না। এর পর নিজের উপর বিশ্বাস রাখুন। বিশ্বে কেবল আত্মবিশ্বাসীরাই এগিয়ে যায়। অন্যের উপর নির্ভর করবেন না, নিজের কাজ করুন এবং আপনার স্বপ্ন অনুসরণ করুন।

ভয়কে জয় করা

আপনাকে ভয় পায় এমন জিনিসগুলির একটি তালিকা তৈরি করুন। সবচেয়ে ভয়ের কাজটিকে শীর্ষে রাখুন এবং কীভাবে এটি সম্পন্ন করা যায় সে সম্পর্কে চিন্তা করুন। এই কাজগুলো হয়ে গেলে আপনার ভয় শেষ হয়ে যাবে। পাশাপাশি আপনার দুর্বলতা এবং শক্তির একটি তালিকা তৈরি করুন।

আপনার দুর্বলতা বা শক্তি কী তা আপনার চেয়ে ভাল কেউ জানে না। অনেক সময় আমরা নিজেরাই এই দিকটা চিন্তা করি না। আপনি যদি নিজের সম্পর্কে এই সমস্ত কিছু জানেন তবে আপনি এমন যে কোনও পরিস্থিতিতে নিজেকে আরও ভাল উপায়ে বের করতে সক্ষম হবেন।

ধ্যান করুন

প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময় ধরে সঠিকভাবে ধ্যান করা আমাদের অতন্ত্য জরুরি। দিনে 20-30 মিনিট শান্তিতে একা বসে থাকা। আপনি যদি ঈশ্বরে বিশ্বাস করেন তবে এই সময়টি ঈশ্বরের সাথে প্রার্থনায় ব্যয় করুন। ধ্যান মানে ধ্যান করা, নিজের মনের কণ্ঠস্বর শোনা। কিছুক্ষণের জন্য পার্থিব জিনিস ভুলে গিয়ে মনের ভেতরের আত্মার কণ্ঠস্বর শুনুন। যেই ভয় আপনাকে কষ্ট দিচ্ছে, তা ঈশ্বরকে বলুন এবং তাঁর পায়ে নিক্ষেপ করুন।

এটি করার মাধ্যমে আপনি একটি অভ্যন্তরীণ শক্তি অনুভব করবেন। আপনার মন শান্ত হবে এবং মনে, শরীরে ইতিবাচকতা আসবে।

Read More:  Inverter AC: ইনভার্টার AC এবং নরমাল AC এর মধ্যে পার্থক্য কোথায় ? জানুন কোন AC টা কেনা আপনার জন্য বেশী লাভজনক

আরও পড়ুন:  যোগের [YOGA] ২০টি উপকারিতা। ওজন কমাতে যোগার উপযোগিতা

ভয় গ্রহণ করবেন না

ভয় অনেক রূপে আসে। তার ভয় বজায় রাখতে, সে আপনাকে ভয় দেখাতে থাকবে। ভয় আমাদের ভিতরে তখনই আসে যখন আমরা তাকে আসতে দেই। যে সময়ে আপনি ভয় পাচ্ছেন, সেই জিনিসটির ঠিক উল্টোটা ভাবুন বা সেই জিনিসের খারাপ পরিণতির কথা ভাবুন। এটি করার মাধ্যমে আপনি ভয়ের মুখোমুখি হন। তখন এর চোখের দিকে তাকিয়ে ভয় কমানো যায়।

লক্ষ্য নির্ধারণ করুন

যখন জীবনের কোন দিক বা লক্ষ্য থাকে না তখন আমরা বিপথে চলে যাই। ভুল চিন্তা, শয়তানী জিনিস, ভয় মনের মধ্যে বাসা বাঁধতে শুরু করে। একটি গন্তব্য থাকার কারণে, আমরা সেই গন্তব্যের দিকে বেশি মনোযোগ দিই, কঠিন পথে নয়। লক্ষ্য অর্জনের সময় আপনি যে ছোট ছোট জয়গুলি পাবেন তাতে আপনি আনন্দ পাবেন, আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়বে, যার ফলে আপনার ভয়ও হ্রাস পাবে।

যদিও ভয় সবসময় খারাপ না, তবে জীবনে কিছু ভয় থাকতেই হবে। চিন্তা করুন যদি আমাদের ফেল করার ভয় না থাকতো তাহলে আমরা কিভাবে পড়ালেখা করতাম। যদি বাবা-মায়ের বকাবকি বা ধমকের ভয় না থাকত, তাহলে আমরা কীভাবে সঠিক পথে হাঁটতাম। যদি অসুস্থ হওয়ার ভয় না থাকতো তাহলে স্বাস্থ্য ভালো রাখবো কিভাবে? বসের ভয় না থাকলে অফিসের কাজগুলো ঠিক সময়ে কীভাবে করতেন।

আপনি যদি ইতিবাচক থাকেন তবে আপনার চারপাশের পরিবেশও হবে মনোরম। আপনি অন্যদের সাথে আপনার অভ্যন্তরীণ ইতিবাচকতা শেয়ার করুন। এর ফলে সেও হয়তো উপকৃত হবে এবং আপনিও ভালো থাকবেন। তবে একটা কথা মনে রাখবেন সব সময় পসিটিভ চিন্তা ভাবনা রাখবেন মনের মধ্যে এবং পসিটিভ চিন্তা ভাবনা মানুষের সাথে মেলা মেলামেশা করবেন।

আরও পড়ুন: চক্র মেডিটেশন করার ৭ [সাত] সুবিধা

আরও পড়ুন: পেটের মেদ কমানোর সেরা ১৫ টি উপায়

Leave a Comment